Breaking News

সিকেল কর (Secale Cor)

সিকেল কর (Secale Cor)

সিকেল কর ক্রিয়ান্থানঃ মন, মস্তিক ও মেরুমজ্জার উপর এবং জরায়ু ও তৎসংক্রান্ত অন্যান্য যন্ত্রসমূহে ইহার ক্রিয়া প্রধান। ইহা দুর্বল, কৃশ, ও রোগাজীর্ণ স্ত্রীলোকদের পীড়ায় অধিক ক্রিয়া করিয়া থাকে।

নির্দেশক লক্ষণঃ রোগীর বাহ্য দেশ অতিশয় ঠান্ডা, কিন্তু শরীরাভ্যন্তরে নিদারুন জালা সেজন্য ঠান্ডা ঘরে, ঠান্ডা বাতাসে, ঠান্ডা জলে উপশম। রোগী শীর্ণকায়া, ক্রোধী, দুর্বল, ক্ষীণ ও শুষ্কদেহ। চক্ষু তারা সম্প্রসারিত। চক্ষু কোটর প্রবিষ্ট ও স্থির এবং চক্ষুর কোণে নীল দাগ এবং এক দৃষ্টে চাহিয়া থাকে। হস্তপদ বিশেষতঃ আঙ্গুলের অগ্রভাগ অসাড় ও ঠান্ডা। হস্তপদ পান্ডুবর্ণ এক চোপসান অথচ আবৃত রাখিতে পারে। আবৃত করিলে যন্ত্রণায় অধীর হয়। রোগীর খুব ক্ষুধা হয়, পিপাসা ও বেশী। কিছুতেই যেন পিপাসা নিবৃত্ত হয় না। মুখমন্ডল মলিন সংকুচিত ও বসিয়া যাওয়ার মত, মুখমন্ডলে খিল ধরা আরম্ভ হয় এবং সমগ্র শরীরে প্রসারিত হয়। আক্ষেপজনিত মুখ বিকৃতি। মস্তিস্কে নিস্ক্রিয় বেদনা, আক্রান্ত স্থানে রক্ত সঞ্চয়, তৎসহ মলিন মুখমন্ডল। এই বেদনা মস্তকের পশ্চাৎভাগে হইতে উঠিতে পারে। মস্তক পশ্চাৎ দিকে খেচিঁয়া থাকে। মাথার চুল ঝরিয়া যায়। নাসিকা হইতে রক্তস্রাব, কালচে রক্ত ধীরে ধীরে ক্ষরিত হয়। জিহ্বা শুষ্ক, ফাটা, জিহ্বা হইতে কালির ন্যায় রক্ত নিঃসৃত হয়। জিহ্বা পুরু প্রলেপযুক্ত চটচটে পীতাভ, শীতল ও সীসার ন্যায় রঙ বিশিষ্ট, জিহ্বার অগ্রভাগ আড়ষ্ট এবং উহাতে ঝিনঝিন করে। কলেরার মলের ন্যায় মল, তৎসহ শীতলতা ও খিলধরা। শরীর বরফের ন্যায় শীতল, আচ্ছাদন অসহ্য, অসাড়ে মলত্যাগে, মলত্যাগে অনুভূতি শূন্যতা, গুহ্যদ্বার পূর্ণভাবে প্রসারিত বা হা করিয়া থাকে। কলেরায় খিলধরা ও ঠান্ডা চটচটে ঘাম, পৃষ্ঠদেশ, তলপেট, হাত পা ঠান্ডা, পা ঝিনঝিন করে। শিশুদের বিসুচিকায় ভেদ, বমি, বলক্ষয়, অত্যন্ত তৃষ্ণা মুখ ও চক্ষু যেন চুপসাইয়া যায়। নাড়ী কখনও দ্রুতগামী, কখনও পাওয়া যায় না। চর্ম শুষ্ক ও সহজেই ফাটে। ফাটিলে এক ফোঁটাও রক্ত বাহির হয় না। নিদ্রা গভীর ও সুদীর্ঘ, অনিদ্রা, তৎসহ অস্থিরতা, জ¦র, উদ্বেগপূর্ণ স্বপ্ন, যাহারা স্বভাবত ঔষধ এবং মদ্যপান করে তাহাদের অনিদ্রা। মূত্রাশয়ের পক্ষাঘাত, মূত্র অবরুদ্ধ, তৎসহ নিষ্ফল মূত্রবেগ, মূত্রাশয় হইতে কালরক্ত বাহির হয়। বৃদ্ধদের অসাড়ে মূত্রত্যাগ। জরায়ু বাহির হইবার মত বেদনা। জরায়ু ও ওভেরীতে রক্তাধিক্য ও টাটানি বেদনা। জরায়ু হইতে কাল দুর্গন্ধযুক্ত পাতলা রক্তস্রাব, সামান্য নাড়িলে চড়িলে তাহার বৃদ্ধি, গর্ভস্রাব, তৃতীয় মাসে গর্ভস্রাব হইবার উপক্রম। রক্তস্রাব হইবার পূর্বে জরায়ুতে অত্যন্ত কষ্টদায়ক সংকোচন। প্রসব বেদনা ধীরে ধীরে শুরু হয়, জুড়ানো বা ঘিনঘিনে ব্যাথা থাকিয়া থাকিয়া হয় ও জুড়াইয়া যায়। বেদনার তেমন জোর নাই। সুতিকাস্রাব অত্যন্ত দুর্গন্ধযুক্ত ও তরল, ঐ স্রাবে কখনো অধিক কখনো বা কম। স্ত্রীলোকদের স্তনে নিতান্ত স্বল্প পরিমাণে দুধ। শীর্ণকায় স্ত্রীলোক। রজঃস্রাব অনেকবার হয় এবং শীঘ্র শীঘ্র প্রকাশ পায়। পরিমাণে অধিক এবং স্বাভাবিক ৪/৫ দিনে বন্ধ না হইয়া অনেকদিন পর্যন্ত স্থায়ী হয়। সেই সঙ্গে ইউট্রাসে বেদনা, ঐ বেদনার গতি নিম্নদিকে, রক্তস্রাবের সহিত হাত পা শীতল, শীতল ঘাম, দুর্বলতা, সূক্ষ নাড়ী ও হাত পায়ে খিল ধরে।

মানসিক লক্ষণঃ রোগীর চিন্তাশক্তি বিলুপ্ত হয়। উন্মত্ততা, প্রলাপের সময় উন্মাদের ন্যায় কাহাকেও কামড়াইতে যায় এবং রোগী পানিতে ডুবিতে চায়, উন্মত্তার সহিত রোগী হাসে ও হাততালি দেয় এবং নিজের গা ঠেলিয়া নিজেকে ডাকে। রোগীর শরীরের অভ্যন্তরে জ¦ালাবোধ, সে জন্য ঠান্ডা লাগায়। রোগী মনে করে যে ঘরের মধ্যে দুই জন লোক আরোগ্য করিয়াছে। ক্রোধান্বিত এবং মৃত্যু ভয় ও অস্তিরতা।

প্রয়োগ ক্ষেত্রঃ স্ত্রীরোগ, গর্ভস্রাব, প্রসব বেদনা, কলেরা, চর্মপীড়া, কুমরী বাত, গ্যাংগ্রীন, ফুসফুসে পীড়া, মূত্রাশয়ে পক্ষাঘাত প্রভৃতি।

প্রতিষেধক ঔষধঃ সালফার ও টিউবারকুলার, অনুপূরক ঃ একোন, পালসে, আর্সেনিক, মার্ক।

বৃদ্ধিঃ স্পর্শে, সর্বপ্রকার গরমে, নড়াচড়ায়, মাসিক রক্তস্রাবের পূর্বে।

উপশমঃ শীতল বাতাসে, শীতল স্নানে, অনাবৃত অবস্থায়, ঘর্মস্রাবে, ঘর্ষণে, পাখার বাতাসে ও খোলা বাতাসে।

ক্রিয়ানাশকঃ ক্যাম্ফর, ওপিয়াম। মেয়াদঃ ২০ থেকে ৩০ দিন।

শক্তিঃ ০ থেকে ২০০ শক্তি। ধাতুগত অবস্থায় পরিবর্তন সাধনে সিএম পর্যন্ত সমান কার্যকরী।

About The Author

DR. MOHAMMAD SHARIFUL ISLAM

নামঃ- ডা. মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম হোমিও হল সংক্ষিপ্ত নামঃ এস এই হোমিও হল

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *