Breaking News

প্রসব বেদনা

প্রসব বেদনা শুরু হইবার পূর্বে তরল ভেদ, পুনঃ পুনঃ প্রস্রাব করা, যৌনিদ্বার দিয়ে লাল শ্লেষ্মা পড়া, মানসিক অবসন্নতা ও স্নায়ুবিক কম্পন প্রভৃতি  লক্ষণ প্রকাশ পায়। বেদনা প্রথমে তলপেটে আরম্ভ হয়, এই বেদনা সর্বপ্রথম পিঠের দিকে অনুভব হইয়া পড়ে সম্মুখ দিকে আসে ও তৎপরে উরুর দিকে নামিতে থাকে। বেদনা পূর্বেপেক্ষা প্রবলভাবে আসে। প্রথম কর্তনবৎ বেদনা অনুভব হয় কিন্তু প্রসবের সময় নিকটবর্তী হইয়া আসিলে নিচের দিকে কিছু ঠেলিয়া বাহির হইবে এইরুপ বেদনা অনুভব হয়। এই সময় বেদনা ঘন ঘন আসিতে থাকে, এক বেদনা যাইতে না যাইতে অন্য বেদনা আসে, বেদনার বেগ বৃদ্ধি পায় ও কোঁথ দিতে ইচ্ছা হয়। এইরুপ বেদনার পর সন্তান ভূমিষ্ট হয়। যদি প্রসব বেদনা আরম্ভ হইয়া সন্তান হইতে বিলম্ব হয় বা রোগিনী বিশেষ কষ্ট পায় তাহা হইলে নিম্নলিখিত ঔষধ প্রয়োগ করা কর্তব্য।

প্রধান ঔষধঃ কলোফাইলাম, বেলেডোনা, পালসেটিলা, সিকেলি, জেলসিমিয়াম, কেলি ফস

কলোফাইলামঃ ব্যথা একবার আসে আবার সম্পূর্ণ চলিয়া যায়। রোগিনী ব্যথা অসহ্য বোধ করেন, কোন কিছু ধরিয়া কাঁপতে থাকেন।

বেলেডোনাঃ স্বাভাবিক প্রবল বেদনা, জরায়ুর মুখ শক্ত, কিছুতেই খোলে না, বেদনা হঠাৎ আসে ও হঠাৎ যায়, মাথাধরা, মুখ লাল, হাত পা, ছোঁড়া।

পালসেটিলাঃ অতিশয় মৃদু বেদনা ও অতি বিলম্বে আসে, ব্যথা ক্রমেই কমিয়া যায়; বেদনার জন্য হৃদকম্পন বা দম আটকান ভাব, খোলা বাতাস চায়। ইহার দুই তিন মাত্রা দিলেই বেদনা বেশী হইয়া প্রসব হইয়া যায়। ভ্রুণ অস্বাভাবিক অবস্থায় থাকিলে ইহার ২০০ শক্তি ব্যবহারে ভ্রুণ স্বাভাবিক অবস্থায় আসে।

জেলসিমিয়ামঃ জরায়ুর মুখ শক্ত থাকিলে ইহা দিলে নরম হয়ে যায়। রোগিনী বেদনায় কাপিঁতে থাকেন।

ক্যামোমিলাঃ অসহ্য বেদনা, বেদনার জন্য ছটফট করে, সামান্য কারণে চটিয়া উঠে।

ইগ্নেশিয়াঃ শোক, দুঃখগ্রস্ত ও হিষ্টিরিয়া রোগাগ্রস্ত গর্ভিণী জরায়ুতে খিলধরা ও কর্তনবৎ বেদনা, পেট খালিবোধ।

সিকেলি করঃ অতি অল্প বেদনা, তাহাও থামিয়া যাইবার উপক্রম, দুর্বল স্ত্রীলোক।

কেলি ফস ৩ঃ  প্রসব বেদনার পক্ষে বিশেষ উপযোগী। বেদনা কম হউক আর বেশী হউক, একবার আসুক আর চলিয়া যাক। ইহা গরম জলের সহিত ঘন ঘন প্রয়োগ করিলে নিশ্চিত ফল পাওয়া যাইবে। এমনকি ইহা দ্বারা মৃত ভ্রুণও আপনা হইতে নির্গত হইয়া আসে।

ঔষধ প্রয়োগঃ রোগের অবস্থানুসারে ২০/৩০ মিনিট অথবা এক ঘন্টা অন্তর অন্তর ঔষধ প্রয়োগ করিবে।

আনুষঙ্গিক নিয়মঃ প্রসব বেদনা শুরু হইলে পেটের তেল ও জলের মালিস করিবে এবং প্রসবদ্বারের নিকটবর্তী স্থান সমূহে নারিকেল তৈল দ্বারা নরম করিয়া রাখিবে, জরায়ুর মুখ প্রসারিত হইলে গর্ভিণীকে শয়ন করাইবে। বেশী কোঁথ দেওয়া ভাল নহে।

About The Author

DR. MOHAMMAD SHARIFUL ISLAM

নামঃ- ডা. মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম হোমিও হল সংক্ষিপ্ত নামঃ এস এই হোমিও হল

Related posts

12 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *