Breaking News

প্রমেহ বা গনোরিয়ার হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

প্রমেহ রোগের বিবরণঃ

প্রমেহ পীড়িত স্ত্রীলোকদের সহিত সহবাসে পুরুষেরা এবং প্রমেহ পীড়িত পুরুষের সহিত সহবাসে স্ত্রীলোকেরা এই পীড়ায় আক্রান্ত হয়।প্রস্রাব করিবার সময় অসহ্য জ্বালা যন্ত্রনা,পুনঃপুনঃ প্রস্রাবের বেগ,অতি কষ্টে ফোটা ফোটা মুত্রত্যাগ,লিঙ্গ স্ফীত,বেদনাযুক্ত হইয়া উঠে।মুত্রনালী চুলকায়,সুড় সুড় করে,পাতলা পুজ পড়িতে থাকে,ক্রমশঃ রোগ বৃদ্ধি পাইয়া সাদা বা হলুদ বর্ণের পুজ স্রাব হইতে থাকে।কখনও কখনও প্রস্রাবের সহিত রক্ত পড়ে।

প্রমেহ বা গনোরিয়ার হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

*একোনাইট ন্যাপ:-প্রমেহ রোগের প্রথমাবস্হায় জ্বর,পিপাসা,অস্হিরতা,প্রস্রাব ত্যাগে ভীষণ জ্বালা,যন্ত্রণা,যাতনা,পুনঃপুনঃ স্রাবের বেগ,কাটা ফোটার ন্যায় বেদনা।ফোটা ফোটা প্রস্রাব,প্রস্রাব ত্যাগে ভীষণ জ্বালা যন্ত্রণা রক্ত মিশ্রিত প্রস্রাব।
*ক্যানাবিস স্যাট:-প্রমেহ রোগের তরুন অবস্হায় প্রস্রাব ত্যাগে জ্বালা যন্ত্রণা,ঘন ঘন প্রস্রাবের বেগ,হলুদ বা সবুজ বর্ণের পুজ,তাহার সহিত রক্ত।ক্রমাগত লিঙ্গ উদগম ও বেদনায় ইহা অব্যর্থ।
*ক্যান্থারিস:-প্রস্রাবের ঘন ঘন বেগ,প্রস্রাব নির্গমনকালীন আগুনে পুড়িয়া যাওয়ার মত জ্বালা।ফোটা ফোটা প্রস্রাব ,প্রাস্রাব করা কালীন কোথনী,প্রস্রাবের সাথে রক্ত ও এক প্রকার পদার্থ নির্গত হয়।মাঝে মাঝে যন্ত্রণা দায়ক লিঙ্গ উত্থান।
*মার্কুরিয়াস সল:-সবুজ বা হলদে গাঢ় স্রাব।স্রাবে দুর্গন্ধ।মুত্রথলিতে জ্বালা ও ব্যাথা।ঘন ঘন প্রস্রাব,প্রস্রাবের পরেও মনে হয় আরো প্রস্রাব রহিয়া গেল।
*স্যালিক্স নায়গ্রা:-অত্যাদিক স্বপ্ন দোষ,হস্তমৈথুন,প্রমেহ,রোগজনিত লিঙ্গোদগম,চলিতে ফিরিতে ঘুমাইতে জননেদ্রিয় উত্তেজিত হইয়া উঠে।
*কোপেভা:-প্রস্রাব ত্যাগ কালে অত্যান্ত জ্বালা,ঘন ঘন প্রস্রাবের বেগ।ফোটা ফোটা প্রস্রাব পড়ে।পুজের মত সাদা আঠার মত চট চটে শ্লেমা নির্গত হয়।প্রস্রাব ঘোলা,মাঝে মাঝে রক্ত দেখা যায়।প্রমেহ রোগের প্রথমাবস্হায় ইহা ব্যবহারে উপকার হয়।
*পালসেটিলা:-প্রমেহ রোগের নতুন বা পুরাতন অবস্হায়,হলুদ বর্ণের গাঢ় পুজের মত স্রাবে পালসেটিলা অব্যর্থ।প্রস্রাবের জ্বালা যন্ত্রনায় ক্যান্হারিস সহ পর্যায়ক্রমে সেবনে ভাল ফল দেয়।
*থুজা:-প্রস্রাবের ভীষণ বেগ।ফোটা ফোটা প্রস্রাব,প্রস্রাবে জ্বালা।হলুদ বা সবুজ বর্ণের পাতলা স্রাব,মাঝে মাঝে রক্ত,মুত্রনালির ভিতরে কিট কিট করে কামরায়,সুড় সুড় করে প্রস্রাব নির্গত হইবার পরও মনে হয় আরোও কিছু প্রস্রাব রহিয়া গেল।
*ইকুইজিটাম হাইমেল :-প্রস্রাবে জ্বালা পোড়া,ঘন ঘন প্রস্রাবের বেগ।অল্প প্রস্রাব,প্রস্রাবের সঙ্গে শ্লেমা,রক্ত মুত্র নালীতে গিন গিনে ব্যথা,প্রস্রাব ধারণে অক্ষমতা,সময় সময় প্রস্রাব অসাড়ে হইয়া যায়।
*টেরিবিন্হিনা:-প্রস্রাব ত্যাগে ভীষণ কষ্ট।জ্বালা যন্ত্রণা,রক্ত মিশ্রিত ফোটা ফোটা প্রস্রাব।প্রস্রাবে ভীষণ দুর্গন্ধ।মাঝে মাঝে শুধু রক্ত প্রস্রাব।জিহ্বা শুস্ক ও চকচকে দেখা যায়।
*হাইড্রাসটিস:-গণেরিয়া রোগের পুরাতন অবস্হায় হলদে রংয়ের গাঢ় পুজ স্রাব হইতে থাকে।প্রস্রাবের জ্বালা থাকিলেও অল্প তখন এই ঔষধ উপকারী।
*ক্যানাবিস ইন্ডিকা:-প্রস্রাবের পুর্বে ও পরে জ্বলা,প্রস্রাব পরিমাণে অল্প,ফোটা ফোটা নির্গত হয়।পুনঃ পুনঃ জনেন্দ্রিয় উত্তেজিত হইয়া উঠে।
*সার্সাপ্যারিলা:-পুরাতন প্রমেহ রোগে ঘন ঘন প্রস্রাব।প্রস্রাবের পরিমাণ অল্প,প্রস্রাবের পুর্বে সময়ে ্জ্বালা যন্ত্রণার লেশ মাত্রও থাকে না।প্রস্রাব করার শেষ মুহুর্তে ভীষণ জ্বালা যন্ত্রণা শূলুনী ব্যথা রোঘীকে অস্হির করিয়া তুলে।প্রস্রাব শেষে জ্বালা ইহার প্রধান পরিচয়।

প্রমেহ রোগ চিকিৎসা একটি জটিল ও সময় সাপেক্ষ্য ব্যাপার।
একবার যার প্রমেহ রোগ হয়েছে তাদেরপুনঃআক্রমনের সম্ভাবনারয়েছে।
সুতরাং এই রোগ সম্পর্কে পূর্বধারনা থাকলে কেউ কোন দিন অবৈধ মিলনের চিন্তাও করবে না।এই রোগ আক্রমনের ফলে বংশ পরস্পরা এই রোগ বহন করে চলে।
এই বিচেনায় প্রতিরোধের দিকে বেশী মনোযোগী হওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ।

প্রতিরোধঃ বহুগামিতা পরিহার।পতিতাবৃত্তির অবসান।ধর্মীয় অনুশাসনে জীবন যাপন।সংযত যৌনাচার।যথোপযুক্ত প্রতিরোধ সহকারে যৌন মিলন করা।

About The Author

DR. MOHAMMAD SHARIFUL ISLAM

নামঃ- ডা. মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম হোমিও হল সংক্ষিপ্ত নামঃ এস এই হোমিও হল

Related posts

1 Comment

  1. আমিনুল ইসলাম

    পুরাতন গনোরিয়ার জন্য (১৫ -১৬ বছর আগের }
    প্রথমত কি ঔষধ দেওয়া যেতে পারে?
    মাত্রা এবং পাওয়ার কত?

    জানালে উপকৃত হতাম!

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *